রবিবার, ২৫ অক্টোবর ২০২০, ০৭:২৫ অপরাহ্ন

অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের ফলে হুমকির মুখে কয়েকটি গ্রাম !!

আতাউর রহমান, জেলা প্রতিনিধি, ঝালকাঠি ।।
  • আপডেট সময় শনিবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০২০
অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের ফলে
ছবি: সংগৃহীত

অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের ফলে হুমকির মুখে কয়েকটি গ্রাম:

ঝালকাঠি জেলা প্রতিনিধিঃ

ঝালকাঠির সুগন্ধা নদী থেকে কিছু প্রভাবশালী অসাধু বালু ব‍্যবসায়ী ড্রেজার মেশিন বসিয়ে অবৈধভাবে ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীর বিভিন্ন স্পট থেকে বালু উত্তোলন করতেছে এর ফলে দুটি পৌর-এলাকাসহ কিস্তাকাঠি, দিয়াকুলসহ বেশ কয়েকটি গ্রামের হাজার হাজার মানুষ হুমকির মুখে।

অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের ফলে যে কোন সময় নদীর মধ্যে ভেঙ্গে যেতে পারে তাদের বাড়ি ঘর। নদীর ভাঙনের ফলে অনেকের বাড়ি ছেঁড়ে অন্যত্র চলে গেছে। প্রতিদিন গড়ে ৩০ থেকে ৪০টি জাহাজে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। প্রতিদিন লঞ্জঘাট ও মোহনার মাঝ খানে ৬/৭টি লোড ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন চলমান রয়েছে।

২০১০ সালে বালু উওোলন নীতিমালায় যন্ত্রচালিত মেশিন দিয়ে ড্রেজিং পদ্ধতিতে নদীর তলদেশ থেকে বালু উওোলন করা নিষিদ্ধ করা হয়েছে। অথচ এই ক্ষেএে বালু দস্যুরা সরকারি আইন অমান্য করে অনবরত ড্রেজার মেশিন দিয়ে অবৈধভাবে বালু উওোলন করছে !

প্রশাসনকে ম্যানেজ করে প্রভাবশালী কিছু অসাধু ব‍্যবসায়ীর একটি সিন্ডিকেট দীর্ঘদিন থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন অব্যাহত রেখেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এতে করে একদিকে যেমন সরকার হারাচ্ছে কোটি টাকার রাজস্ব তেমনি অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের কারণে নদীর দুই পারে ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে।

প্রায় সারা-বছর ধরে বেপরোয়াভাবে বালু উত্তোলনের ফলে সুগন্ধা তীরবর্তী ঝালকাঠি-নলছিটি এলাকার কয়েকটি গ্রামে নদী ভাঙন ক্রমশই বাড়ছে। তবে সুগন্ধার বালু উত্তোলন ও এর প্রভাব নিয়ে কোনো মাথাব্যথা ও উদ্যোগ নেই স্থানীয়  প্রশাসনের। ভাঙ্গন প্রতিরোধে কোনো ব্যবস্থা না নেয়ায় বর্তমানে হুমকির মুখে ঝালকাঠি শহর রক্ষা বাঁধসহ বেশ কয়েকটি গ্রাম।

বেশ কিছুদিন আগে ঝালকাঠির নলছিটিতে অবৈধভাবে ড্রেজার দিয়ে নদী থেকে বালু উত্তোলনের দায়ে দুটি ড্রেজার সহ দশজনকে আটক কেরে এক মাসের কারাদন্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমান আদলত। নলছিটি উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাখাওয়াত হোসেন নদীতে অভিযান পরিচালনা করেন।

এই ভাবে পরিকল্পনাহীন ভাবে যেখানে সেখানে বালু উওোলন করায় পরিবেশের ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে।  ড্রেজিং পদ্ধতিতে বালু উওোলন করায় পুরো বর্ষা মৌসুমে বসত ভিটা, ফসলি জমি, সেতু ও স্হাপনা হুমকির মুখে পড়েছে।  এই সব কার্যক্রম অবৈধ ঘোষণা করা হলেও এর বিরুদ্ধে প্রশাসন নিরবতা পালন করে আসছেন।  এ বিষয়ে কতৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছেন ঝালকাঠি জেলাবাসী।

এ ব্যাপারে ‘জনসেবার জন্য প্রশাসন’ ঝালকাঠির সু-যোগ্য জেলা প্রশাসক মোঃজোহর আলী বলেন, দু’দিন আগে মোবাইল কোর্ট গিয়েছিল কিন্তু বৃষ্টির জন্য নদীতে নামতে পারেনি। আবারও যাবে, আপনারা অবগত আছেন বিগত দিনে আমরা এই অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধ করার জন্য অনেকবার মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে জরিমান করেছি। আমাদের অভিযান অব্যাহত আছে এবং থাকবে।

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করুন।

এইরকম আরো খবর দেখুন

© All rights reserved © 2020- SottoSamachar.Com || মানুষের সাথে, মানুষের পাশে।

Search Results

Web result with site link

Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesba-lates1749691102