শনিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২০, ০৮:২২ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদ:
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট যেসব সুবিধা পান বাস ও সিএনজি অটোরিকশা সংঘর্ষে এক শিশু নিহত, আহত ৫ ছোট ভাইয়ের জানাজার পর বড় ভাইয়ের মৃত্যু নাগোর্নো-কারাবাখের শেষ প্রদেশেও প্রবেশ করেছে আজারবাইজানের সেনাবাহিনী ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় নতুন ১২ জন আক্রান্ত, জেলায় ২৬৫৬ জন শনাক্ত কাশ্মীর ইস্যুতে আবারও উত্তপ্ত ভারত-পাকিস্তান দলীয় মনোনয়নের আবেদন ফরম সংগ্রহ করলেন সাবেক মেয়র হেলাল উদ্দিন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় চাচাকে হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন একটি স্বাধীন, সুসংহত ও টেকসই ফিলিস্তিন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার পক্ষে বাংলাদেশ ওআইসি বৈঠকে জম্মু-কাশ্মীর নিয়ে যৌথ প্রস্তাব গ্রহণ করেছে বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ মুসলিম দেশগুলো

আজারবাইজান-আর্মেনিয়া সঙ্ঘাত নিরসনের সব প্রচেষ্টাই যেন ব্যর্থ

অনলাইন ডেস্ক ।।
  • আপডেট সময় বুধবার, ২১ অক্টোবর, ২০২০

আজারবাইজান-আর্মেনিয়া সঙ্ঘাত নিরসনের সব প্রচেষ্টাই যেন ব্যর্থ:

আজারবাইজান-আর্মেনিয়া সঙ্ঘাত নিরসনের সব প্রচেষ্টাই যেন ব্যর্থ, দ্বিতীয়বারও যুদ্ধবিরতি কার্যকর করা গেল না নাগরনো-কারাবাখে। দ্বিতীয় যুদ্ধবিরতি ঘোষণার মাত্র কয়েক মিনিটের মধ্যেই আর্মেনিয়া এবং আজারবাইজানের সেনা যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে এবং ক্রমশ সেই সঙ্ঘাত জোরালো হয়।

দুই পক্ষের গোলাবর্ষণে ক্ষতি হয়েছে একের পর এক শহরের। এ ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে কয়েক শত মানুষের। নতুন সঙ্ঘাতের পর যুদ্ধ বিরতির ভবিষ্যৎ প্রশ্নবিদ্ধ।

সপ্তাহ দুয়েক আগে মস্কোর মধ্যস্থতায় সাময়িক যুদ্ধ বিরতির চুক্তি করেছিল আর্মেনিয়া এবং আজারবাইজান। তা ফলপ্রসূ হয়নি। বরং যুদ্ধের ভয়াবহতা বেড়েছিল।

গত রোববার আবারো দুই দেশকে নিয়ে শান্তি আলোচনায় বসেছিল রাশিয়া। রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরভের মধ্যস্থতায় নতুন করে যুদ্ধবিরতি চুক্তিতে সম্মত হয় দুই দেশ। ঠিক হয়, আগামী তিন সপ্তাহ একে অপরকে আক্রমণ করবে না তারা।

তবে, সেই চুক্তির কয়েক মিনিটের মধ্যেই নতুন করে যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে দুইটি দেশ। সোমবার আর্মেনিয়ার পক্ষ থেকে সঙ্ঘাতে তাদের ৭২৯ সেনাসদস্য নিহত হয়েছে বলে জানানো হয়েছে। আজারবাইজান তাদের সামরিক ক্ষয়ক্ষতির হিসাব দেয়নি। তবে তাদের দাবি অনুযায়ী ৬১ বেসামরিক আজারি নিহত ও ২৮২ জন আহত হয়েছে।

এদিকে নাগরনো-কারাবাখ অঞ্চলে সন্ত্রাসী ও বিদেশী ভাড়াটে সেনা জড়ো করার ব্যাপারে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে রাশিয়া বলেছে, এই বিষয়টি কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়।

সোমবার মস্কোয় রুশ প্রেসিডেন্টের মধ্যপ্রাচ্য ও আফ্রিকা বিষয়ক প্রতিনিধি মিখাইল বোগদানভ এক বক্তব্যে এ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন।

রুশ বার্তা সংস্থা ‘তাস’ জানিয়েছে, রাশিয়ার এই শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তা কারাবাখ অঞ্চলে সন্ত্রাসী জড়ো করার জন্য সরাসরি তুরস্ককে দায়ী করেছেন।

আজারবাইজানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় লিখিত বিবৃতিতে দাবি করেছে, চুক্তির কয়েক মিনিটের মধ্যেই আর্মেনিয়া আজারবাইজানের বেশ কয়েকটি শহরে গোলাবর্ষণ শুরু করে। রোববার সারা রাত ধরেই গোলাবর্ষণ করে ধ্বংস করা হয় শহরগুলো। এর মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ এলাকা হলো টারটার, আঘজাবেদি, আঘদাম।

আজারবাইজানের প্রেসিডেন্ট ইলহাম আলিয়েভ দাবি করেছেন, অন্যায়ভাবে আর্মেনিয়া যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করেছে। একের পর এক শহরে গোলাবর্ষণের পরে আজারবাইজানও তার উত্তর দিতে বাধ্য হয়েছে।

এ দিকে আর্মেনিয়ার অভিযোগ, যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করেছে আজারবাইজান। নাগরনো-কারাবাখের যোদ্ধাদের দাবি যুদ্ধবিরতি কার্যকর হওয়ার কিছুক্ষণের মধ্যেই কারাবাখের মারতুনি এবং আরো চারটি গ্রামে গোলাবর্ষণ শুরু করে আজেরি সেনা। সূত্র: রয়টার্স ও তাস।

আরও পড়ুনঃ  সংগ্রাম চালিয়ে যাওয়ার অঙ্গীকার মেহবুবা মুফতির

আরও পড়ুনঃ ফাঁসি দিলেও কাশ্মির নিয়ে সংগ্রাম চলবে: ফারুক আবদুল্লাহ

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করুন।

One thought on "আজারবাইজান-আর্মেনিয়া সঙ্ঘাত নিরসনের সব প্রচেষ্টাই যেন ব্যর্থ"

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এইরকম আরো খবর দেখুন

© All rights reserved © 2020- SottoSamachar.Com || মানুষের সাথে, মানুষের পাশে।

Search Results

Web result with site link

Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesba-lates1749691102