বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ০৫:২৩ পূর্বাহ্ন

তুরস্কের এয়ারডিফেন্স কতটা শক্তিশালী ?

অনলাইন ডেস্ক ।।
  • আপডেট সময় সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০২০

তুরস্কের এয়ারডিফেন্স কতটা শক্তিশালী;

তুরস্কের আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা বিশ্বের অন্যতম শক্তিশালী ও নিরাপদ ভাবা হয়। তাদের নিজস্ব এয়ারডিফেন্স এর পাশাপাশি তারা ন্যাটোর ইউরোপীয় মিসাইল ডিফেন্সের অংশ।

ন্যাটো বিএমডি হিসাবে এজিস মিসাইল ডিফেন্স সিস্টেম রয়েছে ব্লাক সি তে। এটি তুরস্ক কে ব্যালিস্টিক ও আন্তমহাদেশীয় মিসাইল থেকে প্রোটেকশন দেয়।

এবার দেখা যাক তুরস্ক কি ধরনের এয়ারডিফেন্স মিসাইল ব্যবহার করে।

এস৪০০ মিসাইল : তর্ক সাপেক্ষ এটি বিশ্বের সেরা এন্টি এয়ারক্রাফট মিস্টেম। ক্ষেত্র বিশেষ এটি ব্যালিস্টিক মিসাইল ডিফেন্স করতেও সমান পারদর্শী।

এস৪০০ মিসাইল সিস্টেম কে ৫ম প্রজন্মের যুদ্ধবিমান কিলার বলা হয়। অর্থৎ বিশ্বের যেকোন যুদ্ধবিমান কে কাউন্টার করার মত সক্ষমতা রয়েছে এস৪০০ এর মধ্যে।

হিসার মিসাইল: তুরস্কের তৈরি এই অত্যাধুনিক মিসাইল এর শর্ট এবং মিডিয়াম রেন্জের ভ্যারিয়েন্ট সার্ভিসে রয়েছে এবং লং রেন্জ ভ্যারিয়েন্ট টি প্রোটোটাইপ স্টেজে রয়েছে। যা ২০২৩ সালে সার্ভিসে অন্তর্ভূক্ত হবে।

হক মিসাইল: তুরস্কের কাছে মার্কিন মিডিয়াম রেন্জ হক মিসাইল রয়েছে। তবে এই গুলোকে হিসার মিসাইল দিয়ে রিপ্লেসমেন্ট করা হচ্ছে।

রিম১৬২ মিসাইল: তুর্কি নৌবাহিনীর রয়েছে রিম ১৬২ মিডিয়াম রেন্জ এয়ারডিফেন্স সিস্টেম। এটি শত্রু ক্রুজ মিসাইল ও এয়ারক্রাফট কে ধংস করতে সক্ষম। তর্ক সাপেক্ষ এটি বিশ্বের সেরা এরিয়াল এয়ারডিফেন্স সিস্টেম।

রিম ৬৬ মিসাইল: তুর্কি নৌবাহিনীর রয়েছে লং রেন্জ রিম ৬৬ এয়ারডিফেন্স মিসাইল। এটি শত্রু যুদ্ধবিমান ও ক্রুজ মিসাইল ধংস করতে সক্ষম নিমিষেই।

ইউরোস্যাম মিসাইল ডিফেন্স: তুরস্ক ইটালি এবং ফ্রান্স যৌথভাবে ব্যালিস্টিক মিসাইল ডিফেন্স নিয়ে কাজ করছে। তবে ফ্রান্সের সাথে তুর্কি সম্পর্ক খারাপ হওয়াতে তুরস্ক ইটালির সাথে প্রজেক্টের বাকি কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। ২০২৩ সাল নাগাদ এটির প্রোটোটাইপ তৈরি হবে।

রিম১৬১ মিসাইল: বিশ্বের একমাত্র ব্যালিস্টিক ও আন্তমহাদেশীয় মিসাইল ডিফেন্স সিস্টেম এটি। তুরস্ক তাদের আপকামিং টিএফ২০০০ হেভিওয়েট ফ্রিগেট এই মিসাইল যুক্ত করবে।

ন্যাটো প্যাকেজ: ২০১৪ সালের দিকে মিম ১৪ লং রেন্জ এয়ারডিফেন্স অবসরে পাঠানোর পর তুরস্কের এয়ারডিফেন্স শূন্যতা তৈরি হয়। তখন ন্যাটো অস্থায়ী ভাবে পাট্রিয়েট এবং এস্টার৩০ এর ল্যান্ড ভ্যারিয়েন্ট মোতায়েন করে।

মেয়দ শেষ হওয়ার পরও নিরাপত্তা হুমকি থাকায় ইটালি ও স্পেন তাদের এয়ারডিফেন্স সিস্টেম তুরস্ক সিরিয়ার বর্ডারে  মোতায়েন রাখার চুক্তি নবায়ন করে। যেন তুরস্ক শত্র পক্ষ থেকে মিসাইল আক্রমনের শিকার না হয়।

এটি ছাড়াও ন্যাটো প্যাকেজ রিম ১৬১ মোতায়েন রয়েছে ব্লাক সি তে। এতে তুরস্ক কে মিসাইল প্রুভ দেশ হিসাবে গন্য করা হয়।

আরও পড়ুনঃ তুরস্ক থেকে এই অঞ্চলের সবচেয়ে বড় বিমান ঘাঁটি সরিয়ে গ্রিসে হস্তান্তর করবে ন্যাটো!!

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এইরকম আরো খবর দেখুন

© All rights reserved © 2020- SottoSamachar.Com || মানুষের সাথে, মানুষের পাশে।

Search Results

Web result with site link

Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesba-lates1749691102