বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ০১:৩৭ অপরাহ্ন

বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড : ষড়যন্ত্রের গোড়ার কথা

অনলাইন ডেস্ক
  • আপডেট সময় সোমবার, ২৪ আগস্ট, ২০২০

বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড এর ষড়যন্ত্রের গোড়ার কথা : পর্ব-৫

বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড সম্পর্কে তৎকালীন সেনাপ্রধান মেজর জেনারেল কে,এম শফিউল্যাহ বলেছেন, তিনি ছাড়া সেনাবাহিনীর উর্ধ্বতন সবাই এই হত্যা ষড়যন্ত্র বিষয়ে জানতেন। কিন্তু তাকে কেউই এই ব্যাপারটি জানাননি।
১৫ আগস্ট ফজরের নামাজের পরপরই ডিরেক্টর অব মিলিটারি ইন্টেলিজেন্স (ডিএমআই) লেঃ কর্নেল সালাউদ্দিন আমার বাসায় এসে বললেন, স্যার সেনাবাহিনীর কিছু সদস্য ট্যাংক নিয়ে বঙ্গবন্ধুর বাড়ির দিকে গেছে।  তখন আমি ৪৬ বিগ্রেডের কমান্ডার শাফায়াতকে ব্যাটেলিয়ন নিয়ে এগিয়ে যেতে বললাম। কিন্তু বঙ্গবন্ধু সেনাসদস্যদের পোষাক দেখে আমার ওপর বিশ্বাস হারিয়ে ফেলেছিলেন। তাই সবাইকে ফোন করলেও আমাকে করেননি। পরে খবর পেয়ে আমি তাকে ২০-২৫ বার ফোন করি। একবার ফোন রিসিভ করে তিনি বলেন, শফিউল্যাহ তোমার সৈন্যরা আমার বাড়ি আক্রমণ করেছে। কামালকে মনে হয় মেরেই ফেলেছে।তাড়াতাড়ি ব্যবস্হা নাও।আমি তাকে বললাম,  স্যার আপনি কি বাড়ির বাইরে বেরিয়ে যেতে পারবেন? এরপর আমি লাইনে থাকলেও তিনি আর কোন সাড়া দেননি। কিছুক্ষণ পর আমি গুলির শব্দ শুনতে পাই।
শাফায়াতকে ফোন করার পর আমি জিয়া ও খালেদ মোশাররফকে ডাকি। শাফায়াতকে ফোনে নির্দেশনা দিলেও তখনো কোন খোঁজ না পাওয়ায় আমি আমার অফিসে গেলাম। এর আগে খালেদ মোশাররফকে বাহিনী নিয়ে এগিয়ে যেতে বলি। এ সময় জিয়াও আমার সঙ্গে অফিসে আসেন। সকাল ছয়টার দিকে খবর পাই যে, বঙ্গবন্ধু আর নেই। এ সময় খালেদ মোশাররফ ফোন করে জানায়, তাকে ওরা আসতে দিচ্ছে না। আমি বলি, কারা আসতে দিচ্ছে না? কিন্তু খালেদ আর কোনো উত্তর দিলেন না। এর কিছুক্ষণ পর মেজর ডালিম কয়েকজন সেনা সদস্য নিয়ে সশস্ত্র অবস্হায় আমার অফিসে আসে। সে সরাসরি আমার রুমে ঢুকে খুব কাছে এসে অস্ত্র তাক করে বলে,’আপনাকে প্রেসিডেন্ট যেতে বলেছেন।’ তখন আমি বলি, ‘বঙ্গবন্ধুতো বেঁচে নেই। তাহলে তিনি আমায় কিভাবে ডেকে পাঠান।’  ডালিম বলে,  ‘এখন খন্দকার মোস্তাক প্রেসিডেন্ট। তিনি আপনাকে নিয়ে যেতে বলেছেন।’
তখন আমি আমার দিকে তাক করা অস্ত্রের নলে হাত দিয়ে বলি, ‘এই অস্ত্র আমি দেখে এবং ব্যবহার করে অভ্যস্ত। কথা বলার জন্য এসে থাকলে অস্ত্র আর অন্য সেনাদের বাইরে রেখে এসো।’ সে বাইরে অস্ত্র রেখে এসে আমাকে যেতে বললে আমি বলি, ‘খন্দকার মোস্তাক তোমার প্রেসিডেন্ট হতে পারে, আমার না। তোমরা যা পার করো, আমি কোথাও যাব না।’ এ কথা বলে আমি তাদের ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে বাইরে এসে আমার গাড়িতে উঠতে যাই। ঠিক এ সময় পেছনে তাকিয়ে দেখি ডালিমকে জিয়াউর রহমান বলছেন, ‘কনগ্রাচুলেশন ডালিম! ওয়েল ডান।’ এ সময় তিনি আঙ্গুল দিয়ে নিজের গাল দেখিয়ে বলেছেন, কিস মি। এসো, আমার গাড়িতে ওঠ। ‘তখন ডালিম বললো, ‘না,আমি কোনো জেনারেলের গাড়িতে উঠব না। আমার সঙ্গে গাড়ি আছে।’ জিয়ার এই কথা শুনে আমি খুব অবাক হয়ে যাই। তখনই আমার মনে হয়, এর মধ্যে তার হাত আছে।’
খন্দকার মোস্তাকের সরকার সমর্থনের ঘোষণার ব্যাপারে শফিউল্যাহ বলেন, ‘আমি ৪৬ বিগ্রেডের দিকে রওয়ানা দিলাম। সেখানে গিয়ে দেখি সব কমান্ডার ব্যস্ত। আমার কথা শোনার মতো লোক নেই। এমন সময় তারা অস্ত্রের মুখে নৌবাহিনী প্রধান ও বিমান বাহিনীর প্রধানকে নিয়ে এলো।আমাদের তিনজনের দিকে অস্ত্র তাক করে আমাদের রেডিও ষ্টেশনে নিয়ে যায়। গিয়ে দেখি সেখানে খন্দকার মোস্তাক বসে আছে আর পাশে দাঁড়িয়ে আছেন তাহের উদ্দিন ঠাকুর।আমাদেরকে পাশের একটি কক্ষে নিয়ে যাওয়া হলো।সরকারকে সমর্থন দিয়েছি এরকম একটা লেখা নিয়ে এসে পড়তে বললো। ওই লেখা পড়তে আমাদেরকে বাধ্য করা হয়েছিল। লেখাটা পড়লে সেটা রেকর্ড করে বেতারে প্রচার করা হয়েছিল।
দেশে মার্শাল ‘ল’ জারি করা হবে কিনা এসব নিয়ে আলোচনা চলছিল। আমি তখন বঙ্গভবনে। বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডে সরাসরি অংশগ্রহণকারী কর্নেল রশিদ এসে আমার কাছে বসে। আমি ওকে বলি, আচ্ছা রশিদ, বঙ্গবন্ধু হত্যার এই পরিকল্পনা আমি ছাড়া আর কে কে জানেন না ? জবাবে সে বলে, ‘স্যার, আপনি ছাড়া সবাই জানেন। আমরা প্রথমে খালেদ মোশাররফ স্যারকে তার অফিসে গিয়ে বলেছিলাম। তিনি আমাদের গালিগালাজ করে অফিস থেকে বের করে দেন।’ তাহলে আমাকে বললে না কেন? জানতে চাইলাম আমি।রশিদ বললো, ‘স্যার, রোজার ঈদের পর অন্য সেনা অফিসারদের মতো আমিও সস্ত্রীক আপনার বাসায় গিয়েছিলাম। সেদিন আপনাকে বলতে চেয়েছি। কিন্তু সাহস পাইনি।’ শফিউল্যাহ বলেন, খালেদ মোশাররফ আর আমার অফিসের দূরত্ব ২০ গজের চেয়েও কম। অথচ তিনিও আমায় কিছুই জানাননি। (সূত্র: দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন, ৭ আগস্ট ২০১৮ পৃঃ ১২-১১)

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এইরকম আরো খবর দেখুন

© All rights reserved © 2020- SottoSamachar.Com || মানুষের সাথে, মানুষের পাশে।

Search Results

Web result with site link

Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesba-lates1749691102