শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০, ০৪:০২ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদ:
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় শোবার ঘর থেকে গলিত লাশ উদ্ধার ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় নির্মাণাধীন তিন তলার ছাদ থেকে পড়ে শ্রমিক নিহত রাজধানীর গুলশানের নর্দা এলাকায় কাভার্টব্যানের পত্রিকার হকার নিহত স্বর্ণের মতো চার ক্যাটাগরিতে বি‌ক্রি হবে রূপা হযরত মুসা (আ:)-এর স্মৃতি বিজরিত সেই কূপ ও বাড়ি এখনো টিকে আছে সৌদি আরবে বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর আকাশ প্রতিরক্ষা অনুশীলন অনুষ্ঠিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালের চিকিৎসক ও নার্সসহ সদর উপজেলায় ১২ জন শনাক্ত যুক্তরাষ্ট্রের কোলে আশ্রয় নিতে ছুটছে ভারত, পাল্টা ব্যবস্থা নিচ্ছে চীন বিশ্বকে অবশ্যই ‘গণতান্ত্রিক’ মিয়ানমারের জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে বাড্ডায় জবাই করা যুবকের মরদেহ উদ্ধার

ভারত-যুক্তরাষ্ট্র তথ্য বিনিময় চুক্তিতে উদ্বিগ্ন পাকিস্তান

অনলাইন ডেস্ক
  • আপডেট সময় বুধবার, ৪ নভেম্বর, ২০২০
ভারত-যুক্তরাষ্ট্র তথ্য বিনিময় চুক্তিতে
ভারত-যুক্তরাষ্ট্র তথ্য বিনিময় চুক্তিতে উদ্বিগ্ন পাকিস্তান, গত সপ্তাহে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও ও প্রতিরক্ষামন্ত্রী মার্ক এস্পারের ভারত সফরের সময় সই হওয়া যুক্তরাষ্ট্র-ভারত গোয়েন্দা তথ্য বিনিময় চুক্তি নিয়ে উদ্বিগ্ন পাকিস্তান। এই চুক্তির ফলে কাশ্মীর নিয়ে ভবিষ্যতের যে কোনো সঙ্ঘাতে ভারত সুবিধাজনক অবস্থানে থাকবে।
বেসিক এক্সচেঞ্জ অ্যান্ড কোঅপারেশন এগ্রিমেন্ট ফর জিও-স্প্যাটিয়াল কোঅপারেশন (বিএসিএ) নামের চুক্তিটি গত মঙ্গলবার তৃতীয় টু প্লাস টু মন্ত্রী পর্যায়ের সংলাপের সময় সই হয়।
এই চুক্তির আওতায় দূর পাল্লার নেভিগেশন ও মিসাইল টার্গেট করার জন্য আধুনিক স্যাটেলাইট ও টোপোগ্রাফিক্যাল তথ্য ভারতকে দেবে যুক্তরাষ্ট্র। বিইসিএ ভারতের সশস্ত্র বাহিনীকে মার্কিন সামরিক স্যাটেলাইটগুলোর সমৃদ্ধ তথ্য প্রদান করবে।
নয়াদিল্লী ও ওয়াশিংটনের মধ্যকার প্রতিরক্ষা সহযোগিতা বেড়েছে। ২০০০ সাল থেকে যুক্তরাষ্ট্র হলো ভারতের দ্বিতীয় বৃহত্তম সামরিক সরঞ্জাম রফতানিকারক।
পাকিস্তান সিনেটের পররাষ্ট্রবিষয়ক কমিটির সদস্য আনোয়ার উল হক কাকার নিক্কেই এশিয়াকে বলেছেন, এই চুক্তির দিকে সতর্ক নজর রাখছে পাকিস্তান। কারণ চীন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক সহযোগিতা ও আঞ্চলিক নিরাপত্তার ওপর এর প্রভাব রয়েছে।
কাকার আরো বলেন, এই পদক্ষেপের ফলে আঞ্চলিক ক্ষমতার ভারসাম্য আরো বদলে যাবে। এতে করে চীনের দিকে আরো বেশি ঝুঁকবে পাকিস্তান।
পর্যবেক্ষকেরা মনে করছেন, বিইসিএ ভারতের প্রতিরক্ষা সক্ষমতা বাড়াবে। উইলসন সেন্টারের এশিয়া প্রগ্রামের উপপরিচালক মাইকেল কুগেলম্যান বলেন, ভারতের জন্য সবচেয়ে বড় সুবিধা হলো, তারা এর ফলে টার্গেট শনাক্ত করার সুবিধা পাবে। তিনি বলেন, বালাকোট হামলার পর যা ঘটেছিল, তা এড়াতে সহায়ক হবে বিইসিএ। ওই সময় ভারত সত্যিই টার্গেটে আঘাত হানতে পেরেছিল কিনা তা নিয়ে সন্দেহের সৃষ্টি হয়েছিল।
গত বছর ফেব্রুয়ারিতে ভারত-শাসিত কাশ্মীরের একটি বহরে সন্ত্রাসী হামলার পর খাইবার পাকতুনখাওয়া প্রদেশে পাকিস্তানের বালাকোট অঞ্চলের বিমান হামলা চালায় ভারত। নয়াদিল্লী দাবি করে, তারা একটি সন্ত্রাসী ক্যাম্পে আঘাত হেনেছে। কিন্তু প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বোমাগুলো টার্গেটে আঘাত হানতে ব্যর্থ হয়েছিল, সেগুলো জনহীন এলাকায় পড়েছিল।
তিনি নিক্কেইকে বলেন, অবশ্য এ ধরনের সঙ্ঘাতে আমেরিকা কোনো পক্ষ নেবে কিনা তা নিয়ে আমি সন্দিহান। আমি এর বদলে উত্তেজনা প্রশমিত করার চেষ্টা করব। কুগেলম্যান বলেন, নয়াদিল্লীর কাছ থেকে প্রচুর হুমকি আসছে। তবে তিনি মনে করেন, তারা অন্য কিছুর চেয়ে কথা বলে অনেক বেশি।
ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে ১৯৯৯ সালের কার্গিল যুদ্ধের সময় নয়াদিল্লী পাকিস্তানি সামরিক অবস্থান সম্পর্কে নিখুঁত তথ্য চেয়েছিল ভারত। কিন্তু ওয়াশিংটন তা দিতে অস্বীকার করায় ভারত তার নিজস্ব স্যাটেলাইট সিস্টেম নির্মাণে উদ্যোগী হয়।
১৯৯৯ সালের জুনে কার্গিল যুদ্ধের সময় ভারতকে লক্ষ্য করে কামানে গোলা ভরছে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর সদস্যরা
বিশেষজ্ঞরা এবার ভিন্ন কিছু ভাবছেন। কুগেলম্যান বলেন, কার্গিল যুদ্ধের সময়কার চেয়ে এখন যুক্তরাষ্ট্র-ভারত সম্পর্ক ভিন্ন। ওই সময় তেমন আস্থা ছিল না, নিরাপত্তাগত সম্পর্ক জোরদার ছিল না। আর এ ধরনের স্পর্শকাতর গোয়েন্দা তথ্য প্রদান করার কোনো চুক্তিও ছিল না।
চীনা মিডিয়াও বিইসিএ চুক্তি চীনের প্রতি বড় ধরনের হুমকি সৃষ্টি করবে বলে মনে করে না। সরকারি মুখপত্র গ্লোবাল টাইমস লিখেছে, ভারতের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা চীনের চেয়ে অনেক দিক থেকেই পিছিয়ে। কেবল বিইসিএ তা পূরণ করতে পারবে না।
গ্লোবাল টাইমস জানায়, ভারত ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে একই ধরনের সামরিক সহযোগিতা হয়েছিল ১৯৬২ সালে চীন-ভারত যুদ্ধের সময়। তবে তা চীনের জন্য বড় ধরনের কোনো ভূমিকা পালন করতে পারেনি। ওই সময় আজকের আধুনিক চীনের তুলনায় অর্থনৈতিক ও সামরিকভাবে বেশ দুর্বল ছিল চীন।
১৯৬২ সালের যুদ্ধের সময় গাধার পিঠে করে গোলাবারুদ নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। ওই যুদ্ধে ভারতকে পরাস্ত করে চীন
মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের মাত্র এক সপ্তাহ আগে বিইসিএ চুক্তি সই হয়েছে। ডেমোক্র্যাট প্রেসিডেন্ট প্রার্থী ও সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন নির্বাচিত হয়ে যাবেন বলে গুঞ্জনের মধ্যে এই চুক্তি সই হয়েছে।
অবশ্য খুব কম পর্যবেক্ষকই বিশ্বাস করেন যে ওয়াশিংটনের ইন্দো-প্যাসিফিক কৌশলে কোনো পরিবর্তন আসবে। ডোরসে বলেন, যিনিই নির্বাচনে জয়ী হন না কেন, ইন্দো-ইউএস সম্পর্ক একই রকম থাকবে। ফলে বিইসিএ বহাল রাখার জন্যই করা হয়েছে। সূত্র: নিক্কেই এশিয়ান রিভিউ

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করুন।

One thought on "ভারত-যুক্তরাষ্ট্র তথ্য বিনিময় চুক্তিতে উদ্বিগ্ন পাকিস্তান"

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এইরকম আরো খবর দেখুন

© All rights reserved © 2020- SottoSamachar.Com || মানুষের সাথে, মানুষের পাশে।

Search Results

Web result with site link

Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesba-lates1749691102