মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০, ০৮:৩১ পূর্বাহ্ন

ময়মনসিংহে কিশোর নজরুল!!

অনলাইন ডেস্ক
  • আপডেট সময় রবিবার, ৩০ আগস্ট, ২০২০

পুলিশে চাকুরির সূত্রে কাজী রফিজ উল্লাহ ছোট ভাই কাজী আবুল হোসেনকে ময়মনসিংহের ত্রিশালের প্রত্যন্ত গ্রাম থেকে নিয়ে যান আসানসোলে। কাজী আবুল হোসেনকে ভর্তি করিয়ে দেন আসানসোল হাইস্কুলে। স্কুলে ফেল করা ছাত্রদের তালিকায় কাজী আবুল হোসেনের নামখানা থাকতো সবার উপরে। সহপাঠীদের মধ্যে পড়াশোনায় যে বন্ধুটি কাজী আবুল হোসেনকে সবসময় সাহায্য করতো সে হলো কাজী নজরুল।

সপ্তম শ্রেণীতে উন্নীত হওয়ার পর অর্থাভাবে নজরুলের পড়াশোনা বন্ধ হওয়ার খবর কাজী রফিজ উল্লাহর কানে পৌঁছালে তিনি ভেবে দেখলেন কৃতি ছাত্র নজরুলকে তাদের সাথে রেখে দিলে তার ছোট ভাই কাজী আবুল হোসেনের লেখাপড়ার উন্নতি হবে, সেই সাথে তাদের বাড়িতে থেকে নজরুল পেট ও লেখাপড়া দুটোই চালিয়ে যেতে পারবেন।

দারোগা কাজী রফিজ উল্লাহর ভ্রাতুষ্পুত্র কাজী তালেবুর রহমান তার স্মৃতি কথায় লিখেছেন, ‘১৯১৪ সালের গ্রীষ্মকাল। একদিন গ্রীষ্মকালীন ছুটিতে ছোট চাচার সঙ্গে নজরুল কাজীর সিমলার কাজী বাড়িতে হাজির হলেন।’

গ্রীষ্মের ছুটির পরপরই কাজী রফিজ উল্লাহর বড় ভাই কাজী বাকায়েত উল্লাহ দরিরামপুর হাইস্কুলে কাজী আবুল হোসেন ও কাজী নজরুল ইসলামকে সপ্তম শ্রেণীতে ভর্তি করিয়ে দিলেন।

কৃতিত্বের সাথে পড়াশোনার পাশাপাশি নজরুল স্কুলের নিয়মিত বিতর্ক, বক্তৃতা, নাটক, কবিতা আবৃত্তি, রচনা ও সঙ্গীত প্রতিযোগিতা প্রভৃতি সহপাঠ্য কার্যক্রমে বহুবার প্রশংসিত ও পুরস্কৃত হয়েছিলেন। যা পরবর্তীতে তার জীবন ও সাহিত্যে প্রতিফলিত হয়েছে।

নজরুলসহ কাজী বাড়ির আরো চার ছাত্র দৈনিক পাঁচ মাইল অতিক্রম করে দরিরামপুর হাইস্কুল ও দরিরামপুর মাদ্রাসায় যাতায়াত করতেন। কাজী হরমুজ উল্লাহ ঘোড়ায় চড়ে, আর চারজন হেঁটে যাওয়া-আসা করেন। কিন্তু সমস্যা দেখা দেয় বর্ষাকালে। সে জন্যই হরমুজ উল্লাহ ছাড়া বাকি চারজনই স্কুলের পাশ্ববর্তী বিভিন্ন বাড়িতে লজিং থাকা শুরু করেন। নজরুল দরিরামপুর স্কুলের পাশেই বিচুতিয়া ব্যাপারি বাড়িতে লজিং জীবন শুরু করেন।

এখন কাছেই স্কুল। হাতে প্রচুর সময়। এ সময়ে নজরুলের যেন কাজ বেড়ে যায়। এদিক-ওদিক ঘোরাঘুরি, আড্ডা দেয়া, গান গাওয়া, বাঁশি বাজানো। স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা হাজী মানিক মোড়লের বাড়িতেও নজরুলের যাতায়াত ছিল। তিনি তার আদর আপ্যায়ন পান। আশপাশে অনেকের প্রিয় ও পরিচিত মুখ হয়ে ওঠেন নজরুল।

স্কুলে বার্ষিক পরীক্ষা শেষে নজরুল হঠাৎ করে দরিরামপুর ত্যাগ করে চলে যান। এ যাওয়াই যে শেষ যাওয়া তা কিন্তু বলে যাননি। লিখা – তাসলিমা রত্না

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এইরকম আরো খবর দেখুন

© All rights reserved © 2020- SottoSamachar.Com || মানুষের সাথে, মানুষের পাশে।

Search Results

Web result with site link

Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesba-lates1749691102