মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০, ০৬:৩৬ পূর্বাহ্ন

রাজধানীর কাঁঠালবাগানে এক ব্যারিস্টারের রহস্যজনক মৃত্যু

Reporter Name
  • আপডেট সময় শুক্রবার, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০২০
এক ব্যারিস্টারের রহস্যজনক মৃত্যু

রাজধানীর কাঁঠালবাগানে এক ব্যারিস্টারের রহস্যজনক মৃত্যু:

রাজধানী ঢাকার কলাবাগান থানাধীন কাঁঠালবাগানের একটি বাসায় আসিফ ইমতিয়াজ খান জিসাদ (৩৩) নামের এক ব্যারিস্টারের রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। পরিবারের অভিযোগ তাকে হত্যা করা হয়েছে। এদিকে মৃত জিসাদের শ্বশুরবাড়ির সদস্যদের দাবি, তিনি ছাদ থেকে লাফিয়ে পড়ে আত্মহত্যা করেছেন।

আরও পড়ুন: পুলিশ সদস্যকে পিটিয়ে হত্যা করলো ড্রাইভার

শুক্রবার (১১ সেপ্টেম্বর ২০২০) আনুমানিক ভোর সাড়ে ৪টার দিকে কাঁঠালবাগান ফ্রি স্কুল স্ট্রিটের ১৬৩ নম্বর বাসায় এই ঘটনাটি ঘটে। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করা হয়, পরে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসলে, সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক ৬ টার দিকে তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

মৃত আসিফের শ্যালক সাইমন শাহিদ নিশাদ জানান, চার বছর আগে আসিফ তার বড় বোন সাবরিনা শাহিদ নিশিতাকে বিয়ে করেন। তবে আসিফের পরিবার এটি মেনে নেয়নি। এই জন্য আসিফ কাঁঠালবাগানে শ্বশুরবাড়িতেই থাকতেন। তাদের কোন সন্তান নেই।

তিনি আরো জানান, আসিফ ও সাবরিনার মাঝে মাঝে পারিবারিক বিষয় নিয়ে ঝগড়া হতো। আসিফ মাদকাসক্ত ছিলেন । চার মাস রিহ্যাবেও ছিলেন। গতরাতেও স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হয়েছে। এক পর্যায়ে আসিফ নয় তলার বারান্দা থেকে রেলিংয়ের ওপর দিয়ে লাফিয়ে নিচে পড়েন। দেখতে পেয়ে তাকে উদ্ধার করে প্রথমে স্কয়ার হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে ভোরে ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে আসলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

আরও পড়ুন: সিদ্ধান্ত নিয়েছি শিক্ষার্থীদের এক হাজার করে টাকা দেবো- মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

তার গ্রামের বাড়ি সিরাজগঞ্জ জেলার কামারখন্দ উপজেলার সাবেক এমপি এ্যাডভোকেট শহিদুল ইসলাম খানের ছেলে আসিফ। তিনি সুপ্রিমকোর্টের ব্যারিস্টার ছিলেন। তার বাবাও সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী। তিনি পরিবারসহ মিরপুর ১৩ নম্বর সেকশনের, রোড ১৭, সি ব্লকে থাকতেন।

এই দিকে মৃত আসিফের বাবা শহিদুল ইসলাম জানান, আসিফ সু্প্রিমকোর্টের ব্যারিস্টার এবং মতিঝিলে দেশ ট্রেডিং করপোরেশনের লিগ্যাল অ্যাডভাইজারও ছিলেন। শ্বশুরবাড়ির লোকই ভোরে খবর দেয় আসিফের অবস্থা ভালো না। তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে  নেওয়া হয়েছে। পরে হাসপাতালে এসে আসিফের মৃতদেহ দেখতে পাই। আমাদের সন্দেহ আমার ছেলে আসিফকে পরিকল্পিতভাবে মেরে ফেলা হয়েছে।

ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ বক্সের ইনচার্জ (পরিদশর্ক) মো. বাচ্চু মিয়া মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।

পোস্টটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এইরকম আরো খবর দেখুন

© All rights reserved © 2020- SottoSamachar.Com || মানুষের সাথে, মানুষের পাশে।

Search Results

Web result with site link

Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesba-lates1749691102